শিরোনাম
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর জেলেনস্কির টুইট বিএনপি করলেও যে বিষয়ে আপত্তি নেই শামীম ওসমানের শততম ছক্কার মাইলফলকে মুশফিক ক্ষমতায় গেলে প্রতিশোধ নিতে চান না ইমরান খান মেট্রোরেল চলাচল বন্ধ ছিল ১ ঘণ্টা স্বামী-স্ত্রীর বয়সের ব্যবধান কত হওয়া উচিত কচুয়ায় অটোরিক্সা চালক সাব্বির হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার ৯ নেদারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার দ্বিপাক্ষিক বৈঠক ভাসানচরে পৌঁছালো আরও ১ হাজার ৫২৭ রোহিঙ্গা ইসরায়েলকে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করতে ইইউ’র আহ্বান কোস্ট গার্ড আধুনিকায়নে ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার: রাষ্ট্রপতি একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ বিশিষ্ট ব্যক্তি বছরের ব্যবধানে বেড়েছে খেলাপি ঋণ গুম-খুন নিয়ে মিথ্যাচার করছে বিএনপি: কাদের সীমান্তে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সতর্ক বিজিবি
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৩৯ পূর্বাহ্ন

উচ্চফলনশীল জাত ও প্রযুক্তি দ্রুত মাঠ পর্যায়ে নিতে হবে: কৃষিমন্ত্রী

দর্পণ ডেস্ক / ১৩৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২০
কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক (ফাইল ফটো)

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দেশে চাষযোগ্য জমি হ্রাস, জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে ভবিষ্যতে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে ফসলের উচ্চফলনশীল জাত ও প্রযুক্তি দ্রুততার সাথে মাঠ পর্যায়ে কৃষকের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।

শনিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতি আয়োজিত ‘অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা: নিরাপদ খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা বিষয়ে চূড়ান্ত খসড়ার উপর পর্যালোচনা’ শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, জিডিপিতে কৃষির অবদান ক্রমশ কমলেও বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষির গুরুত্ব অপরিসীম। কৃষির এই গুরুত্ব সমসময়ই থাকবে দুটি কারণে। একটি হচ্ছে দেশের মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও অন্যটি হচ্ছে শিল্পের কাঁচামালের যোগান এই কৃষি থেকে আসে। অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় প্রবৃদ্ধির যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে তা অর্জন করতে হলে কৃষিকে আরও বেশি দায়িত্ব নিতে হবে; কৃষিকে আরও সফল করতে হবে।

ওয়েবিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক জ্যেষ্ঠ সচিব সাজ্জাদুল হাসানের সভাপতিত্বে সমিতির মহাসচিব অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মিজানুল হক কাজল, জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি শুভঙ্কর সাহা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) অধ্যাপক ড. শামসুল আলম। প্রবন্ধে বলা হয়, অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় ৮% প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে সেটি অর্জনে ৩টি বড় খাত হলো রপ্তানি, রেমিট্যান্স ও কৃষি। কৃষিতে প্রবৃদ্ধি ৪% উন্নীত করতে হবে, নাহলে কোনভাবেই অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় যে লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে তা অর্জিত হবে না বলে তিনি মনে করেন। গত অর্থবছরে কৃষিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩.৯২%।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ