শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০:৪১ পূর্বাহ্ন

শাহরাস্তিতে সরকারি ভূমি দখলের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে মানববন্ধন

মো: রিপন হোসেন, শাহরাস্তি (চাঁদপুর) / ২৬৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১

চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয়নে শোরসাক উচ্চ বিদ্যালয়ের পূর্ব পাশে ১ একর ১৬ শতাংশ সরকারি ভূমি(দিঘী) দখলের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।
শনিবার সকালে দিঘীর সামনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে অর্ধশতাধিক স্থানীয় লোকজন মানববন্ধনে অংশ নেয়। ভুয়া দলিল দেখিয়ে স্থানীয় মৃত আইয়ুব আলীর ছেলে ইউনুছ মিয়া তার এক আত্মীয়ের পক্ষে আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার  কথা বলে এক মাস পূর্বে বিরোধ সৃষ্টি করে আসছে বলে মানববন্ধনে অভিযোগ করে। ইউনুছ মিয়া ও তার আত্মীয় ভূমি দস্যু বলেও অভিযোগ করেন তারা।
মানববন্ধনে এলাকাবাসীর পক্ষে নেতৃত্ব দেন মৃত হেদায়েত উল্লাহর ছেলে গোলাম মোস্তফা, মৃত হাজী রফিক উল্লাহর ছেলে নূরের রহমান দুলাল, মৃত আব্দুল করিম শাহর ছেলে আনোয়ার হোসেন(দেলু) সহ আরও অনেকে।
ঘটনার বিবরণীতে জানা গেছে, উপজেলার শোরসাক ৩৯৭ নং মৌজার খাস পুকুর বর্তমান ৭০৩ নং ও সাবেক ৭৩৫ নং দাগে সরকারি দিঘী প্রায় ৩০ বছর যাবৎ ইউনিয়ন ভূমি কার্যালয় থেকে লিজ(ভাড়া) নিয়ে স্থানীয়রা ব্যবহার করছে। সর্বশেষ ওই গ্রামের মৃত হাজী নজরুল ইসলামের ছেলে মো. জসীম উদ্দীন গত চার বছর যাবৎ লিজ নিয়ে ব্যবহার করছেন। এর পূর্বে ১৩ বছর গোলাম মোস্তফা লিজ নিয়ে দিঘী ব্যবহার করেন।
আরও জানা গেছে, ২০১৫ সালে ভূমি মালকানা স্বত্ত্ব দাবী করে একই উপজেলার আয়নাতলী গ্রামের মরিয়ম বেগম একটি মামলা দায়ের করে। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে সূচীপাড়া ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা(তৎকালীণ) আব্দুল মমিন চৌধূরী মামলাটি ভুয়া, মিথ্যা ও বানোয়াট এবং দাখিলকৃত দলিল অবৈধ বলে ১০ দফায় প্রতিবেদন দাখিল করে। তৎপরবর্তী সরকারি নিয়মে লিজ অব্যাহত থাকে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৯/০৫/২০২১ তারিখে চাঁদপুর দেওয়ানী আদালতে মো. ইবরাহীম খলিলকে বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহরাস্তিকে বিবাদী করে একটি মামলা দায়ের করলে আদালত ওই দিঘীতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে। যাহা চলমান রয়েছে।
মানববন্ধনে এলাকাবাসী দাবি করে বলেন, ২১/০৬/১৯৬২ ইং তারিখের ৫২৩৩ নং দলিলটি সম্পূর্ণ ভূয়া। সেজন্য যে বা যারা এই অবৈধ ও ভূয়া দলিল বহন করে এবং তৎসংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানান।
কথা হয় স্থানীয় ইউনুছ মিয়ার সাথে। তিনি বলেন, আদালত অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। আশা করি এর একটি সুষ্ঠু সমাধান হবে।
সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয় ভূমি কর্মকর্তা মো. আব্দুল করিম জানান, বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। এই বিষয়ে আমার কোন মন্তব্য নাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ